কেন বাংলায় আলু সংরক্ষণ করা হবে?

0
27

বাংলায় আলু সংরক্ষণ করতে হবে এই কারণে যে বাংলায় আলুর দাম অনেক কমে গেছে
তাই সরকার বলছেন আলু সংরক্ষণ করে রাখতে যেটা সরকার কিনবে ন্যায্য মূল্য দিয়ে।

হীম ঘরে রাখা আলুর দাম ৮৩.২৫ টাকা+আনুসাঙ্গিক খরচ ৮০ টাকা=১৬৩.২৫ টাকা (প্রতি বস্তা হিসাবে )। কিন্তু চাষিরা যখন বিক্রি করতে যাচ্ছেন তখন এই দাম পাচ্ছেন না। তারা কোথাও ৫০ টাকা বা কোথাও একটু বেশি দাম পাচ্ছে। তার মানে অনেক বড় ক্ষতি হচ্ছে চাষিদের।

এর মধ্যে সরকার নির্দেশ দিয়েছেন ৩১ এ ডিসেম্বরের আগে হীমঘর থেকে আলু বের করতে হবে। চাষিদের আলু চাষে প্রায় ১০০ ভাগের ৩০ ভাগ লোকসান হচ্ছে।

কিন্তু কি করবে তারা ,দাম যে বাড়ছেনা। চাষিরা হীমঘর থেকে আলু বের না করায় বর্তমানে হুগলি মেদিনীপুরের মতো একাধিক জেলায় উপছে পড়ছে হীমঘরগুলু। গত বৎসরের তুলনায় এই বার আলুর বাজার অনেক নিচে ।

সব থেকে জটিল বিষয় হলো দুটি রাজ্যের মধ্যে বিবাদ চলছে , ঊড়িষ্যা এবং পশ্চিমবঙ্গের ।
কলকাতা সরকার ঊড়িষ্যায় আলু সরবরাহ বন্ধ করে দেয়ায় ঊড়িষ্যাবাসি মান করছেন তারাও পেয়াঁজ এবং মাছের সরবরাহ বন্ধ করে দেবে । এই কারণে ঊড়িষ্যায় আলুর দাম ৮০ টাকা হয়ে গেছে আর কলকাতায় আলুর দাম ১৩ টাকা । মমতা ব্যানার্জী বলতে চাইছেন ওনার রাজ্যে যেন আলুর দাম কম থাকে ।

তাছাড়া রাজ্যের প্রধান আলু উৎপাদক অঞ্চলগুলিতে দাম একবারে তলানিতে । কিভাবে ক্ষতির মুখে পড়ছেন চাষিরা ,এক বিঘা জমিতে চাষের খরচ ২৫০০০ টাকা। এক বিঘায় ৭৫ বস্তা উৎপাদন হলে, বস্তা পিছু খরচ ৩৩৩ টাকা ,বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকা প্রতি বস্তা দামে।তার মানে ৩৩ টাকা ক্ষতি। সব শেষে চাষিরা বলতে চাইছেন যদি অন্যান্য রাজ্যে আলু সরবরাহ করা হয় তাহলেই তাদের ভালো ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here