কুকুর হত্যাকে ঘিরে চাঞ্চল্য কলকাতায়

0
125

কলকাতার এন আর এস (NRS ) মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাওয়া গিয়েছে ১৬ টি
কুকুরের মৃতদেহ ।  আর সেই বিষয় নিয়ে চলছে প্রচন্ড অশান্তি স্থানীয় বাসিন্দাদের ।
রবিবার দুপুরে সবার সামনে আসে এই হত্যার ঘটনাটি । সেখানে ছিল ১৫ টি কুকুর ছানার
মৃতদেহ আর ছিল দুটি আহত কুকুর । ঘটনাকে নিয়ে স্তম্ভিত পশুপ্রেমীরা।

পুতুল রায় বলেন রবিবার দুপুর প্রায় সাড়ে তিনটে নাগাদ দু’জন মহিলা এসে দু’টি প্লাস্টিকের প্যাকেট রেখে যায়। দুই মহিলাদের একজন জিন্স ও অন্য জন সালোয়ার -কামিজ পরে ছিল বলে জানা গিয়েছে । আর সেখানে একটি কুকুর প্যাকেট গুলি টানা টানি করায় ছিড়ে গিয়েছিল বলে তিনি দেখতে পেলেন যে একটি কুকুরের চোখ খুব খারাপ ভাবে আহত ।

সন্দেহবশত সেই প্যাকেট খুলে চমকে যান তিনি । কারণ এক প্যাকেটে ছিল প্রচুর খাবার ও অন্য প্যাকেটে জীবন্ত তিনটি কুকুর, দুটো বাচ্চা ও আরেকটি পূর্ণ বয়স্ক কুকুর । পুতুল রায় পশু ডাক্তার অনিতা দেবী ও ওনার স্বামীকে ডাকলেন যারা মৌলালিতে একটি ক্লিনিকে সহ কর্মী হিসাবে কাজ করেন । ওনারা সেখানে পৌঁছতে প্রায় এক ঘন্টা লেগে যায় ।

ততক্ষনে বাচ্চা কুকুরের একটি মারা যায় । অন্য দুটি কুকুরকে নিজেদের বাড়িতে নিয়ে গিয়েছেন এবং সেখানে তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।সেই বিষয়ে পুলিশে FIR দার্জ করা হয়েছে । পুলিশ তদন্ত করছে কিভাবে ঘটল এই ঘটনা বা কে করল এই নৃশংস কাজ ।

স্থানীয় লোকেদের বক্তব্য ,ঘটনাস্থলে সিসিটিভি (CCTV )ক্যামেরা রয়েছে ।
স্থানীয়রা দাবি করছেন সিসিটিভি ফুটেজ চেক করার জন্য ।
যেহেতু সেখানে অনেক খাবার ছিল তাই তাঁরা মনে করছেন কুকুরদের হয়তো খাবারে বিষ মিশিয়ে মারা হয়েছে । এবং এই ঘটনায় হাসপাতালের কেও জড়িত রয়েছেন কি না সেটাও জানতে চান তাঁরা ?

হাসপাতালের সুপারিনটেনডেন্ট ও ভাইস প্রিন্সিপাল সৌরভ চক্রবর্তী বলেছেন যে -তিনি খুবই আশ্চর্য । কারণ এখানে অনেকদিন ধরে কত কুকুর থাকত কিন্তু কোনদিন এমন ঘটনা ঘটেনি। আর সেই জায়গাটাও সবসময় লোকারণ্য।শেষে পুলিশ তদন্তে এটা জানিয়েছে যে ঘটনাটি প্রমাণিত হলে ৫ বছরের জেল হতে পারে । পুলিশ CCTV ফুটেজ চেক করছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here